রাজনীতি

তারা এখন চিনেনা অভিশপ্ত পাপিয়াকে !

“নরসিংদীর একটি পক্ষ এই মেয়েকে পদ না দেওয়ার জন্য আমাদের বলেছিল। আমি পাপিয়াকে পদ দেওয়ার পক্ষে ছিলাম না। তারপরও শেষ পর্যন্ত দিতে হয়েছে।”

পাপিয়াকে অর্থের বিনিময়ে পদ দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগের বিষয়ে নাজমা বলেন, “পদ বাণিজ্য করে যারা পাপিয়াকে পদ দিয়েছে, তাদের বিচারের আওতায় আনা হোক, এমন মেয়েদের জন্য যুব মহিলা লীগের সম্মান যায়।”

কাদের আশ্রয়ে পাপিয়া এতদূর এগিয়েছে- জানতে চাইলে যুব মহিলা লীগের সভাপতি বলেন, “সে কাদের সঙ্গে উঠাবসা করে, তাদের খুঁজে বের করলেই সব পেয়ে যাবেন। আমাদের অনেকের সঙ্গে পাপিয়ার ব্যক্তিগত ও ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিল, তাদের বের করুন।”

ঢাকার পাঁচ তারকা ওয়েস্টিন হোটেলে বিলাসী জীবনে থাকা পাপিয়ার সঙ্গে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা-মন্ত্রীদের ছবি এখন সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল।

তাকে পদ দেওয়ার ক্ষেত্রে যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অপু উকিলের সমর্থন ছিল বলে সংগঠনটির বিভিন্ন নেতা জানিয়েছেন।

অপু উকিল তা অস্বীকার করে বলেন, নরসিংদী আওয়ামী লীগের নেতাদের সুপারিশে পাপিয়াকে পদ দেওয়া হয়েছিল।

“জেলার নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করেই আমরা কমিটি দিই। তখন স্থানীয় আওয়ামী লীগের (তৎকালীন) সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় এমপি-মন্ত্রীদের অনেক তদ্বির ছিল, অনেকেই এই মেয়েকে পদ দেওয়ার জন্য সুপারিশ করে।”

নরসিংদী আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি হীরু বলেন, “কমিটি দেওয়ার পর আমি অপুকে জিজ্ঞাসা করলে সে আমাকে বলেছিল, ‘উপর থেকে চাপ ছিল, তাই পাপিয়াকে নেত্রী বানিয়েছি’।

“আমি বলব, এখন প্রকাশ করুক কোন উপরের চাপে তাকে সাধারণ সম্পাদক বানানো হয়েছে।”

পাপিয়ার অপকীর্তির বিষয়ে কিছুই জানতেন না বলে দাবি করেন অপু উকিল।

“আমি ২০১৪ সালে যখন কমিটি দিয়েছি, তখন সে নরসিংদীতে ছিল। কবে ঢাকায় এসেছে, কবে ব্যবসা শুরু করেছে, এগুলো আমি কিছুই জানি না। আমি তো মনে করেছি, সে নরসিংদীতেই আছে।”

অপু উকিল যে পদধারীদের কথা বলেছেন, তাদের মধ্যে জেলা সভাপতি আসাদুজ্জামান মারা গেছেন, সাবেক মন্ত্রী রাজু অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী। প্রয়াত লোকমানের ভাই নরসিংদীর বর্তমান মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল দাবি করেছেন, তিনি পাপিয়াকে পদ দেওয়ার ঘোর বিরোধিতা করেছিলেন।

কী কারণে পাপিয়াকে নেতৃত্বে চাননি- জানতে চাইলে কামরুল বলেন, “পাপিয়ার উচ্চাভিলাষী চলাচলের কারণে তখই আমরা চাইনি। আর এখন তো আপনারা দেখতেই পারছেন কেন চাইনি।”

নরসিংদীর ছাত্রলীগ নেতা রিমন বলেন, “পাপিয়ার যে অনেক টাকা, সেটা টের পাওয়া যেত। নরসিংদীতে চলার সময় নিজে একটি কারে চলত, আর সঙ্গে ১০-১২টা বাইক থাকত। আমরা সব সময়ই ভাবতাম, এত টাকা আসে কোথা থেকে?”

পাঁচ তারা হোটেলে পাপিয়ার বিলাসী জীবন যাপনের সঙ্গে তার বৈধ আয়ের সঙ্গতি নেই। তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব কর্মকর্তারা বলেছেন, মাদক-অস্ত্র, চোরাচালান, যৌন ব্যবসা, তদবির বাণিজ্য ছিল পাপিয়ার অর্থের উৎস।

যুব মহিলা লীগের ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য সাবিনা আক্তার তুহিনের সঙ্গে পাপিয়ার সখ্যের বিষয়টি বেশ আলোচিত সংগঠনের মধ্যে। পাপিয়ার নানা কাজে তুহিনের পৃষ্ঠপোষকতা রয়েছে, এমন অভিযোগও এসেছে।

তবে তুহিন এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, পাপিয়ার সঙ্গে তার সাংগঠনিক সম্পর্কের বাইরে কিছু ছিল না।

“আমি মহানগর উত্তরের নেত্রী, রাজনীতির কারণে আমার অনেকের সঙ্গে মিশতে হয়েছে। আমাদের কেন্দ্রীয় সম্মেলন আছে, সে কারণে দেশের সব জেলার নেত্রীদের সঙ্গেই আমার মিশতে হয়।”

তুহিন দাবি করেন, ২০১৪ সালে পাপিয়া যখন নরসিংদী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হন, তখনও তাকে চিনতেন না তিনি।

“পাপিয়া ২০১৪ সালে নেতা হয়েছে, আর আমার সঙ্গে পরিচয় হয়েছে ২০১৭ সালে। তাহলে কমিটিতে আসার ব্যপারে আমার কোনো ভূমিকা থাকতে পারে না। আর জেলা কমিটি গঠনে মহানগরের কোনো হাত থাকে না।”তবে ২০১৭ সালে পরিচয়ের পর পাপিয়ার সঙ্গে সখ্য গড়ে ওঠার স্বীকারোক্তি আসে তুহিনের কথায়।

“তারপর থেকে নিয়মিত আসতে। আমি এমপি ছিলাম, তার বাসা আমার বাসা থেকে কাছে, নিয়মিতই আসত।”

তখন সখ্য থাকলেও এক বছর ধরে পাপিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ ছিল না বলে দাবি করেছেন তুহিন।

“হঠাৎ গত বছরের শুরুর দিক থেকে আসা বন্ধ হয়ে গেছে। এমনকি আমি নরসিংদীতে গিয়ে ফোন করেও দেখা পাই নাই। বছর দেড়েক আগে আমার কাছে টাকা ধার চেয়েছিল, আমি দিই নাই। এরপর থেকে আমার এখানে আসে না।”

এত সখ্য থাকার পরও কেন ফোন ধরত না- প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়ানোর কারণেই হয়তবা আমার কাছ থেকে দূরে সরে গেছে।”

তুহিন দাবি করেন, তাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় করতে পাপিয়ার সঙ্গে তাকে জড়ানো হচ্ছে।

“রাজনৈতিকভাবে অনেকেই আমার পেছনে লেগে আছে। শুধু আমার সঙ্গে কেন, কার সঙ্গে তার ছবি নাই? এমপি-মন্ত্রী থেকে শুরু করে আমাদের পার্টির অনেক নেতার সঙ্গে পাপিয়ার ছবি আছে। আমাকে হেয় করতে একটি চক্র আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিচ্ছে।”
এদিকে, সদ্য বহিষ্কৃত যুব মহিলা লীগ নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া ওরফে পিউসহ গ্রেফতার চারজনকে তিন মামলায় পাঁচ দিন করে ১৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। তবে এরই মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদে পাপিয়া ওরফে পিউদের মুখ থেকে বেরিয়ে আসছে অনেক পিলে চমকানো তথ্য। বেরিয়ে আসছে অনেকের নাম। তদন্তে উঠে আসছে, অনেক প্রভাবশালীর সঙ্গে পিউর বিশেষ সম্পর্ক এবং ব্যবসার বিষয়টিও। ইতিমধ্যে র‌্যাব পিউর ঢাকার বাসা, অফিস এবং নরসিংদীর বাড়ি থেকে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ আলামত সংগ্রহ করেছে। এর কিছু তথ্য ইতিমধ্যে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে।

এই সম্পর্কিত আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close